1. [email protected] : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক
  2. [email protected] : muzahid : muzahid
  3. [email protected] : শেয়ারবার্তা : nayan শেয়ারবার্তা
  4. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
গ্রামীণফোনকে ২ হাজার কোটি টাকা পরিশোধের নির্দেশ
শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৩৩ পিএম

গ্রামীণফোনকে ২ হাজার কোটি টাকা পরিশোধের নির্দেশ

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৯
gp-btrc

প্রায় ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা পাওনার মধ্যে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) এখন দুই হাজার কোটি টাকা দিতে গ্রামীণফোনকে নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। অন্যথায় হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হয়ে যাবে।

আজ রোববার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এই আদেশ দেন। তিন মাসের মধ্যে ২ হাজার কোটি টাকা না দিলে হাইকোর্টের দেওয়া নিষেধাজ্ঞা থাকবে না বলে জানিয়েছেন গ্রামীণফোনের আইনজীবী মোহাম্মদ মেহেদী হাসান চৌধুরী।

আদেশের সময় গ্রামীণফোনের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট এ এম আমিনউদ্দিন, ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপস ও ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান চৌধুরী। বিটিআরসির পক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ব্যারিস্টার খন্দকার রেজা-ই-রাকিব।

আদেশের পর বিটিআরসির আইনজীবী ব্যারিস্টার খন্দকার রেজা-ই-রাকিব সাংবাদিকদের বলেন, অবিলম্বে এই টাকা দিতে হবে। টাকা না দিলে গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে পারবে বিটিআরসি। তিনি বলেন, নিম্ন আদালতে একটি মামলা বিচারাধীন। এই মামলা নিষ্পত্তি হলে জানা যাবে, বিটিআরসি গ্রামীণফোনের কাছে কত কোটি টাকা পাবে। তিনি বলেন, আপিল বিভাগ সময়সীমা দেননি। তবে আদেশের কপি পাওয়া গেলে জানা যাবে, কতদিনের মধ্যে টাকা দেবে গ্রামীণফোন। আপাতত এ আদেশে বিটিআরসি সন্তুষ্ট বলে জানান তিনি।

তবে গ্রামীণফোনের আইনজীবী ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, তিন মাসের মধ্যে টাকা দিতে হবে। এই সময়ের মধ্যে টাকা না দিলে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা থাকবে না। তিনি বলেন, আপিল বিভাগের আদেশের কপি পাওয়ার পর এই আদেশ পুনর্বিবেচনার জন্য রিভিউ আবেদন করার বিষয়টি চিন্তা করা হবে। আদেশের কপি পাওয়ার এক মাসের মধ্যে এই রিভিউ আবেদন করতে হবে। তাই এ জন্য গ্রামীণফোনের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

হাইকোর্ট গত ১৭ অক্টোবর গ্রামীণফোনের কাছে ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা দাবি করে বিটিআরসি দেওয়া চিঠির কার্যকারিতার ওপর অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা দেন। ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে বিটিআরসি আপিল বিভাগে আবেদন করে। এই আবেদনের ওপর শুনানিকালে গ্রামীণফোন আপাতত কত টাকা দিতে পারবে তা প্রথমে ৩১ অক্টোবরের মধ্যে এবং পরে ১৪ নভেম্বরের মধ্যে আদালতকে জানানোর নির্দেশ ছিল। এ অবস্থায় গত ১৪ নভেম্বর গ্রামীণফোন আদালতকে জানায়, তারা শর্তসাপেক্ষে ২০০ কোটি টাকা দিতে রাজি।

গ্রামীণফোনের পক্ষ থেকে বলা হয়, গত ৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত অর্থমন্ত্রী ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর সঙ্গে গ্রামীণফোনের সমঝোতা বৈঠকে পাঁচটি প্রস্তাব মেনে নেওয়া হলেই কেবল তারা টাকা দিতে রাজি। এরপর আদালত আদেশের জন্য ১৮ নভেম্বর দিন ধার্য করেন। কিন্তু ওই দিন আপিল বিভাগে প্রয়োজনীয় বিচারপতি না থাকায় আদালত আদেশের জন্য ২৪ নভেম্বর দিন ধার্য করেন। তবে আদালত এ সময়ের মধ্যে গ্রামীণফোনকে এ বিষয়ে কারো সঙ্গে (ফোরাম) কোনো মধ্যস্থতা না করার নির্দেশ দেন।

শেয়ারবার্তা/ সাইফুল ইসলাম

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

ভালো লাগলে শেয়ার করবেন...

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সূচক পতনে লেনদেন

  • ১ ডিসেম্বর ২০২২