1. [email protected] : anjuman : anjuman
  2. [email protected] : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক
  3. [email protected] : শেয়ারবার্তা : nayan শেয়ারবার্তা
এক নজরে ১০০ কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০৫ পিএম

এক নজরে ১০০ কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন

  • আপডেট সময় : সোমবার, ১ মে, ২০২৩
arthik-protibedon

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে সমাপ্ত প্রথম, তৃতীয় এবং সমাপ্ত সমায়ের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ভিন্ন ভিন্ন খাতের ৯০ প্রতিষ্ঠান।

রোববার (৩০ এপ্রিল) অনুষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে সমাপ্ত প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা ও অনুমোদনের পর তা প্রকাশ করা হয়। কোম্পানি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

কোম্পানিগুলো হচ্ছে-
অগ্নি সিস্টেমস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২২ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৭৮ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৫ টাকা ৭৮ পয়সা।

সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি (ইপিএস) আয় হয়েছে ১৪ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৫৯ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি (ইপিএস) লোকসনা হয়েছে ৬০ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিল ১ টাকা ৭৫ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৭ টাকা ২১ পয়সা।

এবি ব্যাংক: প্রথম প্রান্তিকে ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে ব্যাংকটির ইপিএস হয়েছিল ১৮ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য ছিল ২৯ টাকা ৮৪ পয়সা।

ইউনিয়ন ব্যাংক: প্রথম প্রান্তিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিলো ৩৫ পয়সা।

এ সময়ে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৫ টাকা ৮৩ পয়সা।

ন্যাশনাল ব্যাংক: প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৯৭ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির লোকসান হয়েছিল ১৮ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য ছিল ১১ টাকা ৯২ পয়সা।

ইউনাইটেড পাওয়ার: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (সমন্বিত ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ২৮ পয়সা। গত বছর একই সময়ে সমন্বিত শেয়ার প্রতি ৫ টাকা ৫০ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ১৪ টাকা ১৩ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১৭ টাকা ৩৪ পয়সা সমন্বিত আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৫৩ টাকা ৫১ পয়সা।

ন্যাশনাল টি: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি ৪৭ টাকা ৭০ পয়সা লোকসান হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৩৯ টাকা ৭৮ পয়সা লোকসান হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে শেয়ার প্রতি ৪৬ টাকা ০২ পয়সা লোকসান হয়েছে। গতবছর একই সময়ে ৩১ টাকা ৭২ পয়সা লোকসান হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২ টাকা ০২ পয়সা।

বীচ হ্যাচারী: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ০৮ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯২ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ২৫ পয়সা।

ফার কেমিক্যাল: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৩৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ১৭ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৫৬ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ৩৩ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১১ টাকা ৫৫ পয়সা।

গোল্ডেন হার্ভেস্ট: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০৩ পয়সা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০৮ পয়সা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ৬১ পয়সা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩ টাকা ৪১ পয়সা।

এসএস স্টীল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০০৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৬৩ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০২৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২ টাকা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২২ টাকা ১৯ পয়সা।

ওয়াটা কেমিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৭১ পয়সা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৫১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৩ টাকা ২৩ পয়সা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১০.৪৭ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৬১ টাকা।

জিপিএইচ ইস্পাত: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ১ টাকা ১৬ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ১ টাকা ৩৪ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির লোকসান হয়েছে ৬৮ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৩ টাকা ৩৯ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল টাকা পয়সা।

সাফকো স্পিনিং: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৫৫ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ইপিএস ছিল ১০ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৫৫ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ১৩ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৮ টাকা ৯০ পয়সা।

সামিট এলায়েন্স: তৃতীয় প্রান্তিকের ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৯২ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩৩ টাকা ৯৬ পয়সা।

এম.এল. ডাইং: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ০২ পয়সা । গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ১১ পয়সা।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২১ পয়সা। গতবছর একই সময়ে আয় গয়েছিল ৪৬ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৩ টাকা ৩৬ পয়সা।

মুন্নু ফেব্রিক্স: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ০৩ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ০৫ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে,তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০৯ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৩৩ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২৫ টাকা ৪০ পয়সা।

লাভেলো আইসক্রিম: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৫৮ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৪ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয ছিলো ১ টাকা ১৩ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১২ টাকা ৮৩ পয়সা।

সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ০৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ০৮ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ১৯ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ২৬ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৫ টাকা ৭৭ পয়সা।

বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ০৪ পয়সা লোকসান হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৯৯ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৫৭ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৩ টাকা ৫৪ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২৬ টাকা ৬৮ পয়সা।

শাশা ডেনিমস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৩ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৫৩ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩৬ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৪৫ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৪০ টাকা ৫৩ পয়সা।

ওরিয়ন ফার্মা: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৩ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ০৫ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির একত্রিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৪৪ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে একত্রিত আয় ইপিএস হয়েছিল ৩ টাকা ০৭ পয়সা ।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৮৭ টাকা ৩৭ পয়সা।

তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৩৫ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৮ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৭৭ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩০ টাকা ৬৮ পয়সা।

দ্য ঢাকা ডাইং: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ০৬ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০১ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৭৯ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩৪ টাকা ৬৬ পয়সা।

ওরিয়ন ইনফিউশন: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৮ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৪৫ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৪১ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৪৩ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৩ টাকা ৭৮ পয়সা।

এসিআই ফরমুলেশনস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৩৩ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১ টাকা ৫৩ পয়সা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৫ টাকা ৩৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৫ টাকা ২৪ পযসা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১১ টাকা ২৯ পয়সা (নেগেটিভ) ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৬৮ টাকা ৭৪ পয়সা।

ড্যাফোডিল কম্পিউটার্স: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১৮ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৮ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৫৩ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৩ টাকা ৩৭ পয়সা।

একমি পেস্টিসাইডস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৭ পযসা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩১ পয়সা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৮৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১ টাকা ২৯ পয়সা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ৫৭ পয়সা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৮ টাকা ৩৫ পযসা।

জেএমআই হসপিটাল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৪ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৬০ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৫৯ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ২ টাকা ৮৯ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩১ টাকা ২৯ পয়সা।

বারাকা পাওয়ার: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৮৪ পয়সা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ২ টাকা ৫৩ পয়সা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১ টাকা ২১ পয়সা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২১ টাকা ৭১ পয়সা।

জিবিবি পাওয়ার: ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮০ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৮৭ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২০ টাকা ৭৭ পয়সা।

স্কয়ার টেক্সটাইল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ২ টাকা ৪৭ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ১৩ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৭ টাকা ১৫ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৪৭ টাকা ২৫ পয়সা।

মোজাফফর হোসেন: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১২ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৭৪ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৯৫ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.৭১ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১.১৮ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২০.২৫ টাকা।

বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৪ টাকা ০৩ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১২ টাকা ৭০ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১০ টাকা ৮৮ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৭৯ টাকা ১৫ পয়সা।

জিকিউ বলপেন: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৮২ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ১.৩৬ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৩.০৫ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৩.০৪ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ০.১৫ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১১৯.৯৫ টাকা।

আইটিসি: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৫৪ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৭৫ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৩৯ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৮ টাকা ৩০ পয়সা।

আফতাব অটোমোবাইলস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ৩৯ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৪ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ৬৫ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৫২ টাকা ০৪ পয়সা।

সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২১ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৩৩ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৬৫ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৮০ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১.৪৯ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২২.২৯ টাকা।

ফু-ওয়াং ফুডস: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ০৩ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ০২ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১৭ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১১ পয়সা আয় হয়েছিল।গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৩ টাকা ৯৬ পয়সা।

ফাইন ফুডস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ০৭ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৯ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১৮ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১০ টাকা ৫১৬ পয়সা।

কেডিএস এক্সেসরিস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৬৪ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬৯ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৮২ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২৫ টাকা ৬৭ পয়সা।

সায়হাম কটন: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ০.৩০ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৫৩ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.১০ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.২৭ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ৫.০২ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৫.৭৪ টাকা।

ইনফরমেশন সার্ভিসেস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১১ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ১৭ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৮ পয়সা। যা গত বছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৪৩ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ১৯ পয়সা। যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৩ টাকা ১২ পয়সা।

এদিকে, কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) দাড়িয়েছে ৭০ পয়সা। গত বছর এই সময়ে শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ছিল ৮৪ পয়সা।

ইয়াকিন পলিমার: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৩২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ৪১ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৮০ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১৭ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৫ টাকা ৩৫ পয়সা।

সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৬ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.২২ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৩৯ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৭৩ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ০.৮৮ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৭.২৫ টাকা।

রংপুর ডেইরী: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৮ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৬০ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৪২ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৩৭ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৬ টাকা ৪ পয়সা।

প্রাইম টেক্সটাইল: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৬১ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ১৮ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির লোকসান হয়েছে ৫ টাকা ৮১ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৪৮ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৬৮ টাকা ৬৯ পয়সা।

শাহজিবাজার পাওয়ার: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির একত্রিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ২ টাকা ৪২ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৮ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৫ টাকা ৪৮ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২৭ টাকা ৭৫ পয়সা।

কুইন সাউথ টেক্সটাইল: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৮ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৪৯ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.৭৪ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.০৬ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১.৯৫ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৫.৩১ টাকা।

অ্যাডভেন্ট ফার্মা: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৮ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ২৯ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৮ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৯৭ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৪ টাকা ৯৪ পয়সা।

অলিম্পিক এক্সেসরিস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৯১ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস লোকসান ছিলো ২০ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১১ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে লোকসান ছিলো ৩০ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১২ টাকা ২৭ পয়সা।

তিতাস গ্যাস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৬২পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৮ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২ টাকা ০৭ পয়সা।

৩১ মার্চ ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৭৩ টাকা ২৫ পয়সা।

প্যাসিফিক ডেনিমস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৪ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.০৮ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ০.১২ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৩২ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ০.১৮ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩.৫৭ টাকা।

কোহিনূর কেমিক্যাল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৩৩ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৩ টাকা ২২ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮ টাকা ৯৭ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৭ টাকা ৭০ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৫৭ টাকা ১১ পয়সা।

আমান ফিড: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৩৩ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১৬পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২ টাকা ০৫ পয়সা।

৩১ মার্চ ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৩২ টাকা ২৬ পয়সা।

এপেক্স ট্যানারি: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৯২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১২ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ৪০ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ২৮ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৫৭ টাকা ৪৮ পয়সা।

উসমানিয়া গ্লাস: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৩.০২ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ২.৩০ টাকা। এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ৩.৫১ টাকা (নেগেটিভ) ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৮৯.১৫ টাকা।

এডিএন টেলিকম: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০২ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.৫৪ টাকা। এছাড়া নয় মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩.০৩ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.৭৭ টাকা।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১.২৯ টাকা ও শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৯.৬২ টাকা।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ৮৩ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৪ টাকা ৮৩ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) আয় হয়েছে ১৬ টাকা ৮২ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১৬ টাকা ০৩ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১২৩ টাকা ৩৩ পয়সা।

ফার ইস্ট নিটিং: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৩৯ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) আয় হয়েছে ৯৭ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৮২ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৯ টাকা ৪৭ পয়সা।

শাইনপুকুর সিরামিকস: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৬ পয়সা । গত বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১৭ পয়সা।

এদিকে হিসাববছরের তিন প্রান্তিক তথা ৯ মাসে ( জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৩১ পয়সা। গত বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ২৭ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৩১ টাকা ৮৪ পয়সা।

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ২ টাকা ১৩ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ২ টাকা ৪৭ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৮ টাকা ১৫ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৯ টাকা ৬০ পয়সা আয় হয়েছিল।

বেক্সিমকো লিমিটেড: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ১ টাকা ২২ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৪ টাকা ৪১ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৮ টাকা ৫৭ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১২ টাকা ৮৯ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৯৫ টাকা ৯৯ পয়সা।

নর্দান ইসলামী ইন্সুরেন্স: প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৬৫ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৩ টাকা ৮১ পয়সা।

আমরা টেকনোলজিস: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ২৭ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ১১ পয়সা বা ৪১ শতাংশ।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির একত্রিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৭ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে একত্রিত ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ৩৮ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ৭১ পয়সা বা ৫১ শতাংশ।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ২৪ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২২ টাকা ৮৩ পয়সা।

যমুনা অয়েল: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৫ টাকা ৫৪ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ২ টাকা ০২ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২০ টাকা ৮১ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১০ টাকা ৪৫ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৯৫ টাকা ৪৩ পয়সা।

রেনেটা লিমিটেড: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৫ টাকা ১৮ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ১১ টাকা ৭৮ পয়সা আয় হয়েছিল। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ৬ টাকা ৬০ পয়সা বা ৫৬ শতাংশ।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২৩ টাকা ৪৭ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৩৫ টাকা ৩৫ পয়সা আয় হয়েছিল। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ১১ টাকা ৮৮ পয়সা বা ৩৪শতাংশ।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২৬৬ টাকা ৯৪ পয়সা।

ইস্টার্ণ লুব্রিকেন্টস: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৩ টাকা ৯৭ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৩৫ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৯ টাকা ৮৯ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ২ টাকা ৮১ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৭৬ টাকা ৭২ পয়সা।

ক্রাউন সিমেন্ট: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ১ টাকা ৫২ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ১৬ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ১৬ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৯১ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৫০ টাকা ৩৬ পয়সা।

রহিমা ফুড: তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.১৩ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে লোকসান হয়েছিল ০.০৬ টাকা।

আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১ টাকা ৩১ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১০ টাকা ৪১ পয়সা।

সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ঊচঝ) হয়েছে ৬১ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২১ পয়সা।

এস.আলম কোল্ড: তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৬০ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৬২ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৮ টাকা ৬৭ পয়সা।

হাক্কানি পাল্প: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি ১২ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ২০ পয়সা লোকসান হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির লোকসান হয়েছে ৭০ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১ টাকা ০৬ পয়সা লোকসান হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২২ টাকা ৮৪ পয়সা।

ডেল্টা স্পিনার্স: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ০৫ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ারপ্রতি ০১ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির সমন্বিত লোকসান হয়েছে ০৪ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ০৪ পয়সা সমন্বিত লোকসান হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৩ টাকা ২১ পয়সা।

আনলিমা ইয়ার্ন: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ঊচঝ) হয়েছে ১২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে কোম্পানিটির লোকসান ইপিএস ছিলো ১১ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২০ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে লোকসান ইপিএস ছিলো ৩৪ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১০ টাকা ৫৪ পয়সা। আগের বছর ছিলো ১০ টাকা ৩৪ পয়সা।

এছাড়া আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ক্যাশ ফ্লো করেছে ১২ পয়সা (নেগেটিভ)।

আর.এন. স্পিনিং: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.০২ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.০২ টাকা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.০৬ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ০.০৮ টাকা।

এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ০.০২ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ০.০০০৬ টাকা (নেগেটিভ)।

মুন্নু এগ্রো: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭১ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ০.৬১ টাকা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির একত্রিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.০৭ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.৪৬ টাকা।

এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ১.৭২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৭৫.০৭ টাকা।

মুন্নু সিরামিক: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ঊচঝ) হয়েছে ১৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ৪০ পয়সা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩২ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ০৪ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ৮২ টাকা ৮১ পয়সা।

খুলনা পাওয়ার: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ০৬ পয়সা লোকসান হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির লোকসান হয়েছে ২ টাকা ০৬ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ২৪ পয়সা লোকসান হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৮ টাকা ৮১ পয়সা।

ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ: তৃতীয় প্রান্তিকে ( জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) সমন্বিতভাবে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ২৬ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৫৮ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ১ টাকা ৯২ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ ২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৫৩ টাকা ২ পয়সা।

ইউনিক হোটেল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ৪ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ৩ টাকা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ১ টাকা ০৪ পয়সা বা ৩৫ শতাংশ।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ৫৬ পয়সা। যা গত বছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ৩ টাকা ২৭ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ২ টাকা ২৯ পয়সা বা ৭০ শতাংশ।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৮৯ টাকা ৩ পয়সা। যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৮৪ টাকা ৯১ পয়সা।

এদিকে, কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) বেড়ে দাড়িয়েছে ৪ টাকা ২০ পয়সা। গত বছর এই সময়ে শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ছিল ২ টাকা ১১ পয়সা।

মীর আখতার: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি,২৩-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ঊচঝ) হয়েছে ০.২৭ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ০.২৪ টাকা।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই,২২-মার্চ,২৩) কোম্পানিটির একত্রিত শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৩১ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ১.৭৮ টাকা।

এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) ৮.৪০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নেট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৭.৮২ টাকা।

ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স: প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৩২ পয়সা।

৩১ মার্চ, ২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৩২ পয়সা।

শমরিতা হসপিটাল: তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১০ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিলো ০১ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ০৯ পয়সা বা ৯০০ শতাংশ।

অপরদিকে, ৯ মাসে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৪ পয়সা। যা গত বছরের একই সময়ে ইপিএস আয় ছিলো ১ টাকা ২১ পয়সা।

৩১ মার্চ,২০২৩ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৮ টাকা ৮৪ পয়সা।

এনার্জিপ্যাক: সমাপ্ত তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৫২ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ২৯ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৩১ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৮৪ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৪৯ টাকা ০৬ পয়সা।

ইস্টার্ণ ইন্স্যুরেন্স: সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৫৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৫ টাকা ১৬ পয়সা।

এছাড়া, ৩১ ডিসেম্বর,২০২২ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২ ৫টাকা ৪৯ পয়সা।

এই লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য আগামী ২৭ জুলাই বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করবে কোম্পানিটি। এর জন্য রেকর্ড তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ৩০ মে।

ডেসকো: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৩ টাকা ৬৫ পয়সা লোকসান হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৫ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ৩ টাকা ৪৪ লোকসান হয়েছে। গতবছর একই সময়ে ৫৬ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৬২ টাকা ৪৫ পয়সা।

দেশ গার্মেন্টস: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ১৫ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৩১ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৬০ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৮০ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৮ টাকা ২৯ পয়সা।

অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৪ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ৩ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ১ টাকা ৯১ পয়সা লোকসান হয়েছে। গতবছর একই সময়ে ১৫ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৬ টাকা ৮৪ পয়সা।

আরামিট লিমিটেড: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ৫৮ পয়সা আয় হয়েছে। গত বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি ২ টাকা ১ পয়সা আয় হয়েছিল।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ৮০ পয়সা। গতবছর একই সময়ে ৫ টাকা ১৩ পয়সা আয় হয়েছিল।

গত ৩১ মার্চ,২০২৩ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৪১ টাকা ৭৪ পয়সা।

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক: সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৬৫ পয়সা। আগের অর্থবছরে ইপিএস ছিল ৩ টাকা ৩৩ পয়সা।

গত ৩১ ডিসেম্বর,২০২২ তারিখে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২৩ টাকা নিয়ে ৮৭ পয়সা।

ঘোষিত লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য আগামী ২১ জুন ব্যাংকটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ২৩ মে।

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক: সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬ পয়সা। আগের অর্থবছরের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৭৩ পয়সা।

গত ৩১ ডিসেম্বর,২০২২ তারিখে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ১৬ টাকা ৬৭ পয়সা।

ঘোষিত লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য আগামী ২৬ জুন ব্যাংকটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ৫ জুন।

এনসিসি ব্যাংক: সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৫০ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২ টাকা ৪৭ পয়সা।

গত ৩১ ডিসেম্বর,২০২২ তারিখে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ২১ টাকা ৯০ পয়সা। এছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৭২ পয়সা।

ঘোষিত লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য আগামী ১০ আগস্ট ব্যাংকটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ০৮ জুন।

এশিয়ান টাইগার সন্ধানী লাইফ গ্রোথ ফান্ড: চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২৩-মার্চ’২৩) ফান্ডটির ইউনিট প্রতি ০৬ পয়সা লোকসান হয়েছে। গত বছর একই সময়ে ইউনিট প্রতি আয় হয়েছিল ২৩ পয়সা।

অন্যদিকে, তিন প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২২-মার্চ’২৩) ইউনিট প্রতি ২৯ পয়সা লোকসান হয়েছে। গতবছর একই সময়ে ১ টাকা ৪০ পয়সা আয় হয়েছিল।

রূপালী ব্যাংক: সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সমন্বিতভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬১ পয়সা। আগের অর্থবছরের ইপিএস ছিল ১ টাকা ৮ পয়সা।

গত ৩১ ডিসেম্বর,২০২২ তারিখে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৩৬ টাকা ১০ পয়সা।

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

ভালো লাগলে শেয়ার করবেন...

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ